৩ লক্ষ ৬২ হাজার একদিনে সুস্থ, আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লক্ষ ১১ হাজার

ফোর্থ পিলার

দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ সামান্য কমতে শুরু করেছে। গতকাল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছিল, দৈনিক সংক্রমণ এবার কমার দিকে। রবিবারের করোনা চিত্র সে কথাই ইঙ্গিত করছে। সুস্থতার সংখ্যা বেড়েছে এক লহমায় অনেকটাই। মৃত্যুর সংখ্যা চার হাজারের উপর রয়েছে। এই মৃত্যু মিছিল এখন কমানোর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যস্ততা, চেষ্টা থাকছে।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত তথ্য প্রকাশ করেছে রোববার সকালে। গত ২৪ ঘন্টায় ভারতে ৩ লক্ষ ১১ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এই সংখ্যা দীর্ঘদিন পর নামল। আশার আলো দেখাচ্ছে গত তিনদিন ধরে কম আক্রান্তের সংখ্যা৷ অন্যদিকে একদিনে সুস্থতার সংখ্যা বেড়েছে অনেকটাই। গত ২৪ ঘন্টায় দেশে ৩ লক্ষ সাড়ে ৬২ হাজার সুস্থ হয়ে উঠেছেন করোনা জয় করে। এই সংখ্যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা আবার চার হাজারের উপরে উঠেছে। গতকাল এই সংখ্যা কমেছিল কিছুটা।

মৃত্যুর মিছিল ভারতে এক অস্থির পরিস্থিতি তৈরি করেছে। বিভিন্ন রাজ্যের থেকে পাওয়া যাচ্ছে গণকবরের সন্ধান। দেশে করোনা ভাইরাসে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ২ লক্ষ ৭০ হাজার পেরিয়ে গিয়েছে। করোনায় অ্যাক্টিভ রোগীর সংখ্যা ৩৬ লক্ষ সাড়ে ১৮ হাজার প্রায়। দেশে ২ কোটি সাত লক্ষ ৯৫ হাজারের বেশি মানুষ সুস্থ হয়েছেন। অন্যদিকে ২ কোটি ৪৬ লক্ষ ৮৪ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত। করোনার ভ্যাকসিন ১৮ কোটি ২২ লক্ষ ২০ হাজারের বেশি মানুষকে দেওয়া হয়ে গিয়েছে। গতকাল প্রধানমন্ত্রী জরুরি বৈঠকে বসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে। টিকাকরণ কর্মসূচি যাতে দ্রুত করা যায়, সেদিকে নজর দিতে বলা হয়েছে আরও বেশি করে।

মহারাষ্ট্র, দিল্লি, তামিলনাড়ু, গুজরাট, পঞ্জাব, কেরল, কর্ণাটক, পশ্চিমবঙ্গ প্রভৃতি রাজ্য নিয়ে যথেষ্ট উদ্বেগ রয়েছে। সংক্রমণ হার যথেষ্ট বেশি এখানে। মহারাষ্ট্র, দিল্লিতে টানা লকডাউন চলছে। আজ রবিবার থেকে এক পক্ষকাল পশ্চিমবঙ্গতেও লকডাউন ঘোষণা করা হল। শহরাঞ্চলে সংক্রমণের হার অত্যন্ত বেশি। যে কোনও পরিস্থিতিতে লকডাউন এখন সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। এ কথাই বলছেন চিকিৎসকরা। কড়া লকডাউনে করোনা পরিস্থিতির সাময়িক উন্নতি হতে পারে। এ কথা বলা হচ্ছে চিকিৎসক মহল থেকে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।