৪০ ডিগ্রি ফের ছোঁয়ার অপেক্ষায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা, হাঁসফাঁস কলকাতায়

ফোর্থ পিলার

মাঝে পূবালী হওয়া কিছুটা স্বস্তি দিয়েছিল। বৈশাখ ফের কালঘাম ছোটাতে শুরু করেছে। চড়চড় করে বাড়ছে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের হাঁসফাঁস করতে শুরু করে দিয়েছে কালবৈশাখী কবে হবে? তাই নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। বিভিন্ন জেলায় বৃষ্টি হয়েছে কয়েকদিন। কলকাতাতেও ছিটেফোঁটা বৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু তাতে কোনও আশানুরূপ ফল দেখা যায়নি।

কলকাতাতে তাপমাত্রার পারদ বাড়ছে গত দু’দিন ধরে। আজ মঙ্গলবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা প্রায় ৩৯ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড।স্বাভাবিকের থেকে সাড়ে তিন ডিগ্রি বেশি। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রয়েছে ২৭.১ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড। স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। গতকাল সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৮.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বনিম্ন ২৫.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে দক্ষিণবঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে যাবে। একথা আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়ে দিয়েছে।

পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান, বীরভূম, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া জেলায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ থেকে ৪২ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড হবে। লু বইবার সম্ভাবনা তৈরি হয়ে গিয়েছে। আগামী তিন দফায় ভোট গ্রহণ এখনও বাকি রাজ্যে। তার মধ্যে আসানসোল,দুর্গাপুর, বাঁকুড়া একটি অংশ, বীরভূম, বর্তমানে ভোট রয়েছে। সাধারণ মানুষকে ভোটের লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে দীর্ঘ সময়। পরিস্থিতি খুব একটা আশানুরূপ নয়। বৈশাখের শুরুতেই ফের তাপমাত্রা ঊর্ধ্বমুখী হতে শুরু করেছে।

চৈত্রের শেষ সপ্তাহে তাপমাত্রা বেড়েছিল এমনভাবেই। মাঝে উচ্চচাপ বলয় তৈরি হয় ঝাড়খণ্ড এলাকায়। তার ফলে বঙ্গোপসাগর থেকে প্রচুর পরিমাণে জলীয় বাষ্পপূর্ণ বাতাস দক্ষিণবঙ্গে ঢুকতে থাকে। পূবালী হওয়ার কারণে এক ধাক্কায় দৈনিক সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নেমে যায় অনেকটাই। দিন কয়েক স্বস্তি মিলেছিল। দক্ষিণবঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলায় শিলাবৃষ্টি দেখতে পাওয়া যায়।

কালবৈশাখীও হয় বর্ধমান, বীরভূম, হুগলির বেশ কিছু অঞ্চলে। কলকাতা সামান্য বৃষ্টি পেয়েছে সেইসব দিনগুলিতে। উত্তরবঙ্গতে বেশ ভালো বৃষ্টি হয়েছিল কয়েকদিন। এবার ফের আপেক্ষিক আদ্রতা বাড়তে শুরু করেছে। গতকাল থেকেই শুকনো হাওয়া শহরজুড়ে দাপাদাপি শুরু করেছে। যত বেলা বাড়ছে অস্বস্তি গলায় ফাঁস দিচ্ছে যেন। বৃষ্টিপাত আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে হওয়ার সম্ভাবনা নেই। এই কথা জানাচ্ছে আবহাওয়া অফিস।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।