৮৬ ‘ এর বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক, রাজপুত্র চলে গেলেন

ফোর্থ পিলার

২০২০ সাল আক্ষরিক অর্থেই কেড়ে নিয়েছে অনেক কিছু। করোনা মহামারী গোটা পৃথিবীকে গ্রাস করেছে। নভেম্বর মাসের শেষ লগ্নে আরও বড় দুঃসংবাদ ঘনিয়ে এল। ফুটবল রাজপুত্র দিয়েগো আর্মান্দো মারাদোনা আর নেই। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি মারা গেলেন। এই মুহূর্তে গোটা বিশ্ব শোকস্তব্ধ। মাত্র ৬০ বছরের স্মরণীয় জীবন। পাশাপাশি রয়েছে বহু বিতর্ক। তার মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না কোনও মানুষই।

১৯৬০ সালের ৩০ অক্টোবর মারাদোনার জন্ম। ছোট থেকেই বাঁ পা অতি সক্রিয়। পরবর্তী জীবনে সেই পা হয়ে উঠল গোটা বিশ্ব ফুটবলের শাসনকর্তা। আর্জেন্টিনার নয়নের মণি হয়ে উঠলেন ক্রমশ তিনি। জাতীয় দলের জার্সি গায়ে উঠল। ১৯৮২ সালে প্রথমবার আর্জেন্টিনার হয়ে বিশ্বকাপ খেললেন মারাদোনা। সেই বিশ্বকাপেই নজর কেড়েছিলেন তিনি। আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পেলে ছিলেন সবার উপরে। এবার তার সঙ্গে যুক্ত হল মারাদোনার নাম।

১৯৮৬ সালে তাঁর নেতৃত্বে আর্জেন্টিনা মাঠে নেমেছে। একের পর এক চোখ ধাঁধানো গোল করছেন মারাদোনা। সেই বিশ্বকাপেই সব থেকে বিতর্কিত ঘটনা ঘটে। বলা হয়েছিল মারাদোনা হাত দিয়ে গোল করেছেন। সেই গোল শেষ পর্যন্ত মেনে নেওয়া হয়েছিল। পরবর্তীকালে মারাদোনা বলেছিলেন ‘হ্যান্ড অফ গড’। ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপ জয় করেছিল আর্জেন্টিনা। এরপরে ১৯৯৯০,৯৪ সালের বিশ্বকাপ খেলেছিলেন দিয়েগো।

দেশের হয়ে ৯১ টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন তিনি। ৩৪ টি গোল আছে তার ঝুলিতে। প্রতিপক্ষের বক্সে ঢুকলে মারাদোনা তখন শিকারি। তাকে থামানো কার্যত মুশকিল ছিল। ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপে পাঁচজনকে কাটিয়ে মারাদোনা গোল করেছিলেন। ২০০২ সালের ভোটিংয়ে ফিফার সর্বকালের সেরা গোল হয়েছিল সেটি। আজও সেই রেকর্ড কেউ ভাঙতে পারেননি। বার্সেলোনা ও বোকা জুনিয়র্স ক্লাবের হয়েও মারাদোনা খেলেছেন। ২০০৮ সালে আর্জেন্টিনা দলের কোচ হয়েছিলেন মারাদোনা। ২০১০ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব সামলেছেন। কোচ হওয়ার পরে মাঠের মধ্যেও বল নিয়ে ড্রিবলিং দেখিয়েছেন তিনি। গোটা বিশ্ব অবাক চোখে দেখেছে সেই জাদু।

দীর্ঘ সময় ধরে মারাদোনা মনের অসুখে ভুগছিলেন। অবসাদ ঘিরে ধরেছিল তাকে। এই অবস্থায় তারও চিকিৎসা চলছিল। এর মধ্যেই বুধবার সব থেকে খারাপ খবরটি এল। মারাদোনা আর নেই। গোটা বিশ্ব এই মুহূর্তে শোকস্তব্ধ। ফুটবল হারালো তার রাজপুত্রকে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।